দাঁড়িয়ে থেকেই ৬ বছর পার নুরুল আমিনের 

স্বাধীন ভোর ডেস্ক / ৬৬ বার দেখা হয়েছে
প্রকাশের সময় শুক্রবার, ২৬ মে, ২০২৩

মোশারফ হোসেন রিয়াদ 
নান্দাইল ( ময়মনসিংহ) প্রতিনিধি:
ময়মনসিংহের নান্দাইল উপজেলার বীরবেতাগৈর ইউনিয়নের চৈতনখালী গ্রামের মো.নুরুল আমিন(৩৮) ৬ বছর ধরে দাঁড়িয়ে থেকেই সময় পার করছেন। দিনরাত সবসময় দাঁড়িয়ে থাকেন তিনি।ঠিকমতো তিনি খায় না, গোসল করে না, ঘুমান না মাঝেমধ্যে কখনো রাতে অল্প ঘুমান। তাও আবার ঘরের বাহিরে দাঁড়িয়ে বা বসে থেকে। বেশিভাগ সময় কাটে তার দাঁড়িয়ে থেকে।
যখন ক্লান্তবোধ করেন তখন অল্পসময় বসে থাকেন।কখনো রাস্তার পাশে,বাড়ির সামনে, কখনো উঠানে,
কখনো বা মসজিদের সামনে দাঁড়িয়ে থাকেন নুরুল আমিন।প্রতিবেশী ও পথচারীসহ উৎসুক মানুষ তার এই দাঁড়িয়ে থাকাটাকে বুঝতে পারেননা।তবে প্রত্যেকরই তার দাঁড়িয়ে থাকা নিয়ে কৌতুহলবশত আলোচনা করেন।
মধুপুর – দেওয়ানগঞ্জ সড়কের চৈতনখালী মসজিদ ও মাদ্রাসা সংলগ্ন ছোট টিনের দুচালায় হতদরিদ্র নুরুল আমিনের বসবাস। পিতা আবুল হোসেন বেঁচে নেই। মা জাহেরা খাতুন মানসিক ভারসাম্যহীন। তারা ৪ ভাই।ভাইদের মধ্যে সে দ্বিতীয়। তিনি বিয়ে করেননি।
সরেজমিন শনিবার  সকালে চৈতনখালী গ্রামে নুরুল আমিনের বাড়িতে গিয়ে দেখা যায়,বাড়ির সামনে রাস্তার পাশে নুরুল আমিন দাঁড়িয়ে রয়েছেন। পরনে কালো লুঙ্গী ও খালি গায়ে জড়ানো রয়েছে কালো চাদর। এক পোশাকেই তিনি থাকতে বেশী পছন্দ করেন। নুরুল আমিনের রয়েছে দাড়ি,গোফ ও মাথায় ঝট বাঁধা লম্বা চুল।
নুরুল আমিনের সাথে কথা বলে জানা যায়,১২ বছর ঢাকায় একটি টেক্সটাইল মিলে চাকুরী করেছেন তিনি।ভালোই চলছিল তার সময়। কিন্তু হঠাৎ তার কি জানি হয়ে গেল। কাজে মন বসেনা।কোনকিছু তার ভালো লাগেনা। ছটপট মন।কিছুতেই তিনি শান্তি পাচ্ছিলেননা।না পারেন বসে থাকতে,না পারেন শুইতে।ঘুমও আসেনা তার চোখে।মন যেন চায় সবসময় বাহিরে দাঁড়িয়ে থেকে সময় কাটাতে।এতেই তার যেন কিছুটা ভালো লাগে।
নুরুল আমিন বলেন,কতদিন ধরে তিনি এভাবে দাঁড়িয়ে বা বসে থাকবেন তা নিজে বলতে পারেননা।আল্লাহই ভালো জানেন।আমারে অনেকেই পাগল বলে।কিন্ত আমিতো পাগল না।
তাছাড়া অসুখের কারনে ঠিকমত গোসল করতে পারিনা,গোসল করতে মন চায়।আমার অসুখের পর থাইক্কা মাথার চুল ঝট হইছে।আমি সবসময় এক পোষাকেই থাহি।পোষাক পাল্টাইতে পারিনা। পেটে ভোগ লাগলে যহন মন চায় তহন খাই।কথাও বলিনা,যহন মন চায় তহন কথা বলি।
তিনি জানান,অসুখের কারনে ভালো মানুষের মতো কোনকিছু করতে পারিনা।ঘরে যাইতে পারিনা।বাইরেই সবসময় দাঁড়াইয়া থাহি, বইসা থাহি।কেন এইরকম করি তা আমি বলতে পারিনা।উপরওয়ালাই ভালো জানেন।চিকিৎসা করতাছি।কবিরাজে কইছে এটি উপরের সমস্যা। মানে মাথার সমস্যা। চিকিৎসা করলে ভালো অইবো।সময় লাগবো আরকি।
নুরুল আমিনের প্রতিবেশী রিটন বলেন, ৬-৭ বছর ধইরা নুরুল আমিন এই জায়গায় দাঁড়াইয়া থাহে।সে খায়না, গোসল করেনা,ঘুমায়না।
নুরুল আমিনের ভাতিজা তরিকুুল ইসলাম বলেন,নুরুল আমিন ৬-৭ বছর ধইরা অসুস্থ। সে দিনরাত সবসময় দাঁড়াইয়া থাহে।রাতেও সে দাঁড়াইয়া ঘুমায়।সে ঠিকমত গোসল করেনা,খায়না।
নুরুল আমিনের মামী মঞ্জিলা খাতুন বলেন, অনেক বছর ধইরা নুরুল আমিন বাইরে থাহে, ঘুমায়না।ঝড়, বৃষ্টি,বাদল শীত সবসময় সে বাইরে থাহে।ঘরে যায়না। দাঁড়াইয়া ঘুমায়।আবার বইসাও ঘুমায়।কোনসময় বইয়া থাহে। এইভাবেই সে বাইরে থাহে।
স্থানীয় ইউপি সদস্য মো.নয়ন মিয়া বলেন, দীর্ঘদিন ধরে নুরুল আমিন এক জায়গায় দাঁড়িয়েথাকে, একই পোষাক পড়ে। সে মনে হয় মানসিক রোগী।যদি তার চিকিৎসা করানো যায় তাহলে সে ভালো হইতে পারে।সমাজের বিত্তশালী মানুষ যদি তার চিকিৎসা করানোর ব্যবস্থা করেন তাহলে হয়তো সে সুস্থ জীবনযাপন করতে পারবে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরও সংবাদ